ভোলার দৌলতখানে শারীরিক প্রতিবন্ধী সেই জামালের পাশে দাড়ালেন প্রশাসন

0
181

 

মোঃ নুরউদ্দিন, দৌলতখান প্রতিনিধি (ভোলা)

কিছু দিন আগে সোসাল মিডায় ভাইরাল হওয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধী জামালের পাঁশে দাড়িয়েছে ভোলার জেলা প্রশাসন।

ভোলার দৌলতখান উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়ন কলাকোপা গ্রামের ৩ নং ওয়াডের বাসিন্দা মোঃ জামাল। তার বিধবা মা ও দুই সন্তান ও এক স্ত্রীসহ তাদের এই ছোট্ট একটি সংসার। পরিবারে তিনি একমাত্র রোজগার করার মত ব্যাক্তি।আর তিনিই হলেন শারীরিক প্রতিবন্ধী।

অন্যদিকে তার স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী। চলছে কোনরকম সংসার। দিন যত যাচ্ছে ততোই অভাব-অনটন বাড়ছে।

এ যেন এক যথারীতি দূর ভাগ্য। গাছ থেকে পড়ে গিয়ে ভেঙে যায় তার মেরুদণ্ড। অর্থের জন্য সময়মতো করতে পারেনি চিকিৎসা। আর ভালো হয়ে ওঠা হল না জামালের। তার জীবন থেকে হারিয়ে যায় এই রঙ্গিন পৃথিবীর আনন্দ ও সুখ থেকে।

তার এই করুন অবস্থা নিয়ে ফেসবুকে লেখালেখি করার পর বিষয়টি জেলা প্রশাসনের নজরে পরে। এরপর জেলা প্রশাসনের কর্মরত কর্মকর্তাদের অর্থায়নে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে শারীরিক প্রতিবন্ধী জামালকে ঘর তৈরি করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এবং তার জন্য আজ (০৩ জানুয়ারি ২০২০ ইং) দৌলতখান উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কাওছার হোসেন ঘর নির্মানের বিভিন্ন সরঞ্জাম নিয়ে যান প্রতিবন্ধী জামালের বাড়িতে।এতে জামাল ও তার পরিবার অনেক আনন্দিত।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কাওছার হোসেন বলেন, গতকাল নিউজটি প্রকাশের পর জেলা প্রশাসক মাছুদ আলম ছিদ্দিক আমাকে বিসয়টি ভালোবাবে জানার নির্দেশনা দেন।আমি বিষয়টি চরখলিফা ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ মুকু খানের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত হই।তারপর জেলা প্রশাসক স্যারের সাথে আালোচনা করি।পরে জেলা প্রশাসক জানান,ভোলা জেলা প্রশাস‌নের কর্মরত কর্মকর্তা‌দের অর্থায়‌নে মু‌জিববর্ষ উপল‌ক্ষে প্রতিবন্ধী জামাল‌কে ঘর তৈরী ক‌রে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কাওছার হোসেন প্রতিবন্ধী জামালের ঘর নির্মানের কাজ উদ্বোধন করে দেন।
এবং তিনি ধন্যবাদ জানান উপস্থিত সকল সংবাদকর্মীবৃন্দদের কে।

ঘর নির্মান উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন, চরখলিফা ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ মুকু খান,দৌলতখান প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান শরীফ, রিপোর্টাস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী জামাল, সাংবাদিক হারুন ফরাজি,সাংবাদিক মোঃ সোয়েব।

এদিকে ঘর পেয়ে আনন্দে আত্মহারা প্রতিবন্ধী জামাল ও তার স্ত্রী নাসিমা।এলাকাবাসি জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান।

Print Friendly, PDF & Email